ঢাকা ০৭:২৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo গাজীপুরের শ্রীপুরে পুলিশের উপর ডাকাত দলের হামলা, দুই পুলিশ সদস্য আহত  Logo বইমেলায় নতুন সংস্করণে অলাত এহ্সানের ‘অনভ্যাসের দিনে’ Logo টঙ্গীতে বিএনপির লিফটে বিতরণ  Logo পূবাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুর মৃত্যু Logo পত্নীতলায় মাদক সেবনের দায়ে ৩ ব্যক্তির কারাদণ্ড Logo বিশ্ব ইজতেমার নিরাপত্তায় সার্বিক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে : আইজিপি Logo টঙ্গীতে কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীকে মারধরের অভিযোগ Logo গাজীপুরের ৫টি আসনের ৪টিতে নৌকা বিজয়ী,কপাল পুড়লো চুমকির Logo নৌকার বিজয়ের লক্ষ্যে প্রচার-প্রচারণায় গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি Logo টঙ্গীতে স্বতন্ত্র প্রার্থীকে গ্রেপ্তারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা

গাজায় যুদ্ধবিরতিতে জাতিসংঘে নতুন উদ্যোগ, মত পাল্টেছে যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৬:৩২:১৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০২৩ ১৭০ বার পড়া হয়েছে
আজকের খবর ২৪ এর সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

গাজা ভূখণ্ডে মানবিক কারণে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়ে এক প্রস্তাবে সোমবার ভোট হওয়ার কথা ছিল জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে। তবে শেষ পর্যন্ত সেই ভোট স্থগিত করা হয়েছে।

সোমবার বিকেল পাঁচটায় নিরাপত্তা পরিষদে গাজা অভিযান নিয়ে ভোটাভুটি হওয়ার কথা ছিল। আরব দেশগুলো এ নিয়ে নতুন খসড়াও তৈরি করছে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র এদিন ভোটে অংশ নিতে চায়নি। এর আগে নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাবে যুক্তরাষ্ট্র ভেটো দিয়েছে।

সূত্রের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়েছে, আগে ভেটো দিলেও এবার যুক্তরাষ্ট্র ভেটো দিতে চাইছে না। একটা সর্বসম্মত প্রস্তাব সামনে আসতে পারে। মঙ্গলবার এ বিষয়ে চূড়ান্ত ভোটাভুটি হতে পারে। তবে যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তাবের খসড়া নিয়ে সন্তুষ্ট নয়। সে বিষয়ে ঐক্যমত্য না হওয়া পর্যন্ত দেশটি প্রস্তাব মানবে না বলেই জানা গেছে।

খবরে বলা হয়েছে, দুবাইয়ের মধ্যস্থতায় আনা নতুন প্রস্তাবটিতে অবিলম্বে হামাস-ইসরায়েলের মধ্যে চিরতরে শত্রুতা বন্ধ করে গাজা উপত্যকায় নিরাপদ ও শর্তহীন মানবিক সহায়তা পৌঁছানোর বিষয়ে আহ্বান জানানো হয়েছে। এছাড়া দ্বি-রাষ্ট্র সমাধান ও ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণে গাজা এবং পশ্চিম তীরের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার বিষয়টি প্রস্তাবে গুরুত্ব পেয়েছে।

এদিকে মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিনের সঙ্গে সোমবার দীর্ঘ বৈঠক হয়েছে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর। সেখানেই এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে।

মঙ্গলবার দিনভর মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী তেল-আবিবে একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে বৈঠক করেছেন। সবচেয়ে লম্বা বৈঠক হয়েছে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োআভ গ্যালান্টের সঙ্গে। সেখানেই গাজা অভিযানের তীব্রতা ক্রমশ কমিয়ে আনার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী সে ইঙ্গিত দিয়েছেন। বস্তুত, বিভিন্ন দেশের পক্ষ থেকে সংঘর্ষ-বিরতির আবেদন জানানো হচ্ছে। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদেও ফের এ বিষয়ে আলোচনা শুরু হওয়ার কথা। তার ঠিক আগে, এই ইঙ্গিত মিলল।

বস্তুত, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে সংঘর্ষ-বিরতি নিয়ে ফের ভোটাভুটি হওয়ার কথা। মঙ্গলবার পর্যন্ত তা পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিল। এই পরিস্থিতিতে ফরাসি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফের সংঘর্ষ-বিরতির দাবি তুলেছেন। এদিকে লোহিত সাগরের নিরাপত্তা নিয়ে নতুন পরিকল্পনায় যুক্তরাষ্ট্র। নতুন ব্যবস্থা গ্রহণ করবে দেশটি।

সোমবারের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলকে জানিয়েছে, ৭ অক্টোবরের ঘটনার পর ইসরায়েল যে পাল্টা লড়াই শুরু করেছে, যুক্তরাষ্ট্র সেটি সমর্থন করে। কারণ ইসরায়েলের আত্মরক্ষার সম্পূর্ণ অধিকার আছে। কিন্তু একইসঙ্গে বেসামরিক মানুষকে রক্ষা করার দায়িত্বও আছে ইসরায়েলের। সেদিকে নজর দিতে হবে।

লোহিত সাগরে নিরাপত্তা বাড়াতে একটি আন্তর্জাতিক গোষ্ঠী তৈরির প্রস্তাব দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। লোহিত সাগর দিয়ে যে জাহাজগুলো যাবে তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে এই গোষ্ঠী। গত কিছুদিনে একাধিকবার ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীরা এই পথে মার্কিন জাহাজের উপর আক্রমণ চালিয়েছে।

অস্টিন জানিয়েছেন, ‘এটি একটি আন্তর্জাতিক সমস্যা এবং সকলে মিলে এর সমাধান করতে হবে।’ যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে এই অপারেশনে যোগ দেবে বাহরাইন, যুক্তরাজ্য, কানাডা, ফ্রান্স, ইতালি, নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে, স্পেন এবং সেশেলস।

২০২২ সালের এপ্রিলে এই রাস্তায় একটি নিরাপত্তা বাহিনী আগেই তৈরি করা হয়েছিল। এবার সেই বাহিনীকে আরও শক্তিশালী করা হবে বলে ঠিক হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র আগেই তিনটি ডেস্ট্রয়্যার যুদ্ধ জাহাজ ওই এলাকায় পাঠিয়ে দিয়েছে। যারা নিয়মিত সেখানে টহল দিচ্ছে। কিন্তু তাতেও নিরাপত্তার ব্যবস্থা সম্পূর্ণ হয়নি। বহু বাণিজ্যিক জাহাজ ওই পথে চলাচল বন্ধ রেখেছে।

গত ৩ ডিসেম্বর ইরানের মদতপুষ্ট হুতি বিদ্রোহীদের মিসাইল তিনটি জাহাজে গিয়ে পড়ে। তিনটি জাহাজই বাণিজ্যিক। এরপরই ওই পথে জাহাজ চালানো বন্ধ করে দেয় অসংখ্য জাহাজ সংস্থা।

নিউজটি শেয়ার করুন

গাজায় যুদ্ধবিরতিতে জাতিসংঘে নতুন উদ্যোগ, মত পাল্টেছে যুক্তরাষ্ট্র

আপডেট সময় : ০৬:৩২:১৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০২৩

গাজা ভূখণ্ডে মানবিক কারণে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়ে এক প্রস্তাবে সোমবার ভোট হওয়ার কথা ছিল জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে। তবে শেষ পর্যন্ত সেই ভোট স্থগিত করা হয়েছে।

সোমবার বিকেল পাঁচটায় নিরাপত্তা পরিষদে গাজা অভিযান নিয়ে ভোটাভুটি হওয়ার কথা ছিল। আরব দেশগুলো এ নিয়ে নতুন খসড়াও তৈরি করছে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র এদিন ভোটে অংশ নিতে চায়নি। এর আগে নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাবে যুক্তরাষ্ট্র ভেটো দিয়েছে।

সূত্রের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়েছে, আগে ভেটো দিলেও এবার যুক্তরাষ্ট্র ভেটো দিতে চাইছে না। একটা সর্বসম্মত প্রস্তাব সামনে আসতে পারে। মঙ্গলবার এ বিষয়ে চূড়ান্ত ভোটাভুটি হতে পারে। তবে যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তাবের খসড়া নিয়ে সন্তুষ্ট নয়। সে বিষয়ে ঐক্যমত্য না হওয়া পর্যন্ত দেশটি প্রস্তাব মানবে না বলেই জানা গেছে।

খবরে বলা হয়েছে, দুবাইয়ের মধ্যস্থতায় আনা নতুন প্রস্তাবটিতে অবিলম্বে হামাস-ইসরায়েলের মধ্যে চিরতরে শত্রুতা বন্ধ করে গাজা উপত্যকায় নিরাপদ ও শর্তহীন মানবিক সহায়তা পৌঁছানোর বিষয়ে আহ্বান জানানো হয়েছে। এছাড়া দ্বি-রাষ্ট্র সমাধান ও ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণে গাজা এবং পশ্চিম তীরের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার বিষয়টি প্রস্তাবে গুরুত্ব পেয়েছে।

এদিকে মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিনের সঙ্গে সোমবার দীর্ঘ বৈঠক হয়েছে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর। সেখানেই এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে।

মঙ্গলবার দিনভর মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী তেল-আবিবে একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে বৈঠক করেছেন। সবচেয়ে লম্বা বৈঠক হয়েছে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োআভ গ্যালান্টের সঙ্গে। সেখানেই গাজা অভিযানের তীব্রতা ক্রমশ কমিয়ে আনার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী সে ইঙ্গিত দিয়েছেন। বস্তুত, বিভিন্ন দেশের পক্ষ থেকে সংঘর্ষ-বিরতির আবেদন জানানো হচ্ছে। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদেও ফের এ বিষয়ে আলোচনা শুরু হওয়ার কথা। তার ঠিক আগে, এই ইঙ্গিত মিলল।

বস্তুত, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে সংঘর্ষ-বিরতি নিয়ে ফের ভোটাভুটি হওয়ার কথা। মঙ্গলবার পর্যন্ত তা পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিল। এই পরিস্থিতিতে ফরাসি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফের সংঘর্ষ-বিরতির দাবি তুলেছেন। এদিকে লোহিত সাগরের নিরাপত্তা নিয়ে নতুন পরিকল্পনায় যুক্তরাষ্ট্র। নতুন ব্যবস্থা গ্রহণ করবে দেশটি।

সোমবারের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলকে জানিয়েছে, ৭ অক্টোবরের ঘটনার পর ইসরায়েল যে পাল্টা লড়াই শুরু করেছে, যুক্তরাষ্ট্র সেটি সমর্থন করে। কারণ ইসরায়েলের আত্মরক্ষার সম্পূর্ণ অধিকার আছে। কিন্তু একইসঙ্গে বেসামরিক মানুষকে রক্ষা করার দায়িত্বও আছে ইসরায়েলের। সেদিকে নজর দিতে হবে।

লোহিত সাগরে নিরাপত্তা বাড়াতে একটি আন্তর্জাতিক গোষ্ঠী তৈরির প্রস্তাব দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। লোহিত সাগর দিয়ে যে জাহাজগুলো যাবে তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে এই গোষ্ঠী। গত কিছুদিনে একাধিকবার ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীরা এই পথে মার্কিন জাহাজের উপর আক্রমণ চালিয়েছে।

অস্টিন জানিয়েছেন, ‘এটি একটি আন্তর্জাতিক সমস্যা এবং সকলে মিলে এর সমাধান করতে হবে।’ যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে এই অপারেশনে যোগ দেবে বাহরাইন, যুক্তরাজ্য, কানাডা, ফ্রান্স, ইতালি, নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে, স্পেন এবং সেশেলস।

২০২২ সালের এপ্রিলে এই রাস্তায় একটি নিরাপত্তা বাহিনী আগেই তৈরি করা হয়েছিল। এবার সেই বাহিনীকে আরও শক্তিশালী করা হবে বলে ঠিক হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র আগেই তিনটি ডেস্ট্রয়্যার যুদ্ধ জাহাজ ওই এলাকায় পাঠিয়ে দিয়েছে। যারা নিয়মিত সেখানে টহল দিচ্ছে। কিন্তু তাতেও নিরাপত্তার ব্যবস্থা সম্পূর্ণ হয়নি। বহু বাণিজ্যিক জাহাজ ওই পথে চলাচল বন্ধ রেখেছে।

গত ৩ ডিসেম্বর ইরানের মদতপুষ্ট হুতি বিদ্রোহীদের মিসাইল তিনটি জাহাজে গিয়ে পড়ে। তিনটি জাহাজই বাণিজ্যিক। এরপরই ওই পথে জাহাজ চালানো বন্ধ করে দেয় অসংখ্য জাহাজ সংস্থা।