ঢাকা ০৬:৪৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo গাজীপুরের শ্রীপুরে পুলিশের উপর ডাকাত দলের হামলা, দুই পুলিশ সদস্য আহত  Logo বইমেলায় নতুন সংস্করণে অলাত এহ্সানের ‘অনভ্যাসের দিনে’ Logo টঙ্গীতে বিএনপির লিফটে বিতরণ  Logo পূবাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুর মৃত্যু Logo পত্নীতলায় মাদক সেবনের দায়ে ৩ ব্যক্তির কারাদণ্ড Logo বিশ্ব ইজতেমার নিরাপত্তায় সার্বিক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে : আইজিপি Logo টঙ্গীতে কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীকে মারধরের অভিযোগ Logo গাজীপুরের ৫টি আসনের ৪টিতে নৌকা বিজয়ী,কপাল পুড়লো চুমকির Logo নৌকার বিজয়ের লক্ষ্যে প্রচার-প্রচারণায় গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি Logo টঙ্গীতে স্বতন্ত্র প্রার্থীকে গ্রেপ্তারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা

ভোটের মাঠে স্বতন্ত্রের দাপট, প্রার্থী দেওয়ায় সবাইকে ছাড়িয়ে জাপা

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৬:২০:৩২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০২৩ ১৮৮ বার পড়া হয়েছে
আজকের খবর ২৪ এর সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

বিএনপি ও তাদের যুগপৎ আন্দোলনের শরিক দলগুলোর বর্জনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন। এবারের নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি দাপট দেখাচ্ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। দল ছাড়া নির্বাচনী লড়াইয়ে নামা ৩৮৩ জন স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে বেশিরভাগই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের।

অন্যদিকে রাজনৈতিক দল হিসেবে ভোটে অংশ নেওয়া সব দলের চেয়ে বেশি প্রার্থী দিয়েছে জাতীয় পার্টি। দলটি এখন পর্যন্ত ২৬৫ আসনে প্রার্থী দিয়েছে।

এবারের নির্বাচনে সবমিলিয়ে ১৮৯৬ জন প্রার্থী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। একক রাজনৈতিক দল হিসেবে জাতীয় পার্টির প্রার্থী সবচেয়ে বেশি ২৬৫ আসনে প্রার্থী দিয়েছে। অন্যদিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী সংখ্যা ২৬৪। অবশ্য উচ্চ আদালতে রিট করা নৌকা হারানো প্রার্থীরা প্রার্থিতা ফিরে পেলে আওয়ামী লীগ সংখ্যায় এগিয়ে যাবে।

রাজনৈতিক দলভিত্তিক প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর তথ্য প্রস্তুত করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ইসির তথ্য অনুযায়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থী ২৬৩ জন। তবে দলটির একজন প্রার্থী উচ্চ আদালতে প্রার্থিতা ফেরত পাওয়ায় সংখ্যাটি দাঁড়িয়েছে ২৬৪ জনে।

অন্য রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে ইসলামী ফ্রন্ট বাংলাদেশের ৩৯ জন, ইসলামী ঐক্যজোটের ৪২ জন, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের ২৯ জন, গণফোরামের ৯ জন, গণফ্রন্টের ২১ জন, জাকের পার্টির ২১ জন, জাতীয় পার্টির (জাপা) ২৬৫ জন, জাতীয় পার্টি-জেপির ১৩ জন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের ৬৪ জন, তৃণমূল বিএনপির ১৩৩ জন, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির ১২২ জন, বিকল্প ধারা বাংলাদেশের ১০ জন, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের ৩৭ জন, বাংলাদেশ কংগ্রেসের ৯৫ জন, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির ১৬ জন, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের ১১ জন, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির ৫ জন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের ৫৪ জন, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের ৩৮ জন, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) ৫ জন, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফের ৪৫ জন, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের ৪ জন, বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির ৭৯ জন, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের ৬৩ জন, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির ২৬ জন এবং বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের (এম.এল) ৪ জন প্রার্থী আছেন।

ইসির তথ্য অনুযায়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী সংখ্যা ৩৮২ জন। তবে উচ্চ আদালতে একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী তার প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ায় সংখ্যাটি দাঁড়িয়েছে ৩৮৩ জনে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ভোটের মাঠে স্বতন্ত্রের দাপট, প্রার্থী দেওয়ায় সবাইকে ছাড়িয়ে জাপা

আপডেট সময় : ০৬:২০:৩২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০২৩

বিএনপি ও তাদের যুগপৎ আন্দোলনের শরিক দলগুলোর বর্জনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন। এবারের নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি দাপট দেখাচ্ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। দল ছাড়া নির্বাচনী লড়াইয়ে নামা ৩৮৩ জন স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে বেশিরভাগই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের।

অন্যদিকে রাজনৈতিক দল হিসেবে ভোটে অংশ নেওয়া সব দলের চেয়ে বেশি প্রার্থী দিয়েছে জাতীয় পার্টি। দলটি এখন পর্যন্ত ২৬৫ আসনে প্রার্থী দিয়েছে।

এবারের নির্বাচনে সবমিলিয়ে ১৮৯৬ জন প্রার্থী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। একক রাজনৈতিক দল হিসেবে জাতীয় পার্টির প্রার্থী সবচেয়ে বেশি ২৬৫ আসনে প্রার্থী দিয়েছে। অন্যদিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী সংখ্যা ২৬৪। অবশ্য উচ্চ আদালতে রিট করা নৌকা হারানো প্রার্থীরা প্রার্থিতা ফিরে পেলে আওয়ামী লীগ সংখ্যায় এগিয়ে যাবে।

রাজনৈতিক দলভিত্তিক প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর তথ্য প্রস্তুত করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ইসির তথ্য অনুযায়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থী ২৬৩ জন। তবে দলটির একজন প্রার্থী উচ্চ আদালতে প্রার্থিতা ফেরত পাওয়ায় সংখ্যাটি দাঁড়িয়েছে ২৬৪ জনে।

অন্য রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে ইসলামী ফ্রন্ট বাংলাদেশের ৩৯ জন, ইসলামী ঐক্যজোটের ৪২ জন, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের ২৯ জন, গণফোরামের ৯ জন, গণফ্রন্টের ২১ জন, জাকের পার্টির ২১ জন, জাতীয় পার্টির (জাপা) ২৬৫ জন, জাতীয় পার্টি-জেপির ১৩ জন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের ৬৪ জন, তৃণমূল বিএনপির ১৩৩ জন, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির ১২২ জন, বিকল্প ধারা বাংলাদেশের ১০ জন, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের ৩৭ জন, বাংলাদেশ কংগ্রেসের ৯৫ জন, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির ১৬ জন, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের ১১ জন, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির ৫ জন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের ৫৪ জন, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের ৩৮ জন, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) ৫ জন, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফের ৪৫ জন, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের ৪ জন, বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির ৭৯ জন, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের ৬৩ জন, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির ২৬ জন এবং বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের (এম.এল) ৪ জন প্রার্থী আছেন।

ইসির তথ্য অনুযায়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী সংখ্যা ৩৮২ জন। তবে উচ্চ আদালতে একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী তার প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ায় সংখ্যাটি দাঁড়িয়েছে ৩৮৩ জনে।